Click on the slide!

Click here to view details

Click on the slide!

অ্যান্টার্কটিকার ভিনসন পর্বতচূড়ায় প্রথম বাংলাদেশি ওয়াসফিয়া নাজরীন

স্বাস্থ্য, পুষ্টি, বিশুদ্ধ পানি ও স্যানিটেশন

বাংলাদেশের ৯২ শতাংশ মানুষ প্রাতিষ্ঠানিক স্বাস্থ্যসেবার সুযোগ থেকে বঞ্চিত।

আমাদের স্বাস্থ্যসেবিকারা জনগোষ্ঠীর দরিদ্র মানুষকে মানসম্মত, সাশ্রয়ী স্বাস্থ্য ও পুষ্টিসেবা দিয়ে থাকে।

স্বাস্থ্যকর্মীরা জনগণের সঙ্গে স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে আলোচনা করেন, যাতে তারা এর প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করে এবং বিভিন্ন স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণ করেন। আমরা নানাবিধ প্যাকেজের আওতায় পরিবার পরিকল্পনা, মা, নবজাতক, শিশু ও কিশোরকিশোরীদের স্বাস্থ্য, পুষ্টি, অসংক্রামক রোগ ও চক্ষুসেবা দিয়ে থাকি।

মাতৃত্বকালীন সেবার ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে আমরা নানা ধরনের সেবা দিয়ে থাকি। মাসিকের সময় মেয়েদের ব্যক্তিগত হাইজিন সম্পর্কে সচেতন করার পাশাপাশি আমরা প্রজনন স্বাস্থ্যসেবা, পরিবার পরিকল্পনা এবং গর্ভকালীন ও প্রসব-পরবর্তী বিভিন্ন সেবা প্রদান করি। আমাদের মাতৃসেবাকেন্দ্রগুলো মায়েদের নিরাপদ সন্তান প্রসব নিশ্চিত করে।

জীবনযাপন পদ্ধতির পরিবর্তন, স্বাস্থ্য পরীক্ষা, রেফার করে দেওয়া এবং নিয়মিত ফলোআপের মাধ্যমে আমরা অসংক্রামক রোগ নিরাময়ের সেবা দিয়ে থাকি। এ ছাড়াও জনগণকে নিরাপদ খাবার পানি এবং স্যানিটেশন ও হাইজিনবিষয়ে শিক্ষা প্রদান করি।

আমরা ওয়াশ কমিটির মাধ্যমে জনগোষ্ঠীর চাহিদা নিরূপণ, হাইজিন সচেতনতা বৃদ্ধি এবং পানি ও স্যানিটেশন ব্যবস্থার উনড়বয়নে সরঞ্জামের সরবরাহ নিশ্চিত করতে উদ্যোক্তা তৈরিতে ভূমিকা রাখি। মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতে স্কুলপড়ুয়া মেয়েদের মাসিকের সময় হাইজিন ব্যবস্থাপনা, তাদের জন্য প্রয়োজনীয় সুবিধা সংবলিত আলাদা টয়লেটের ব্যবস্থা ও সাশ্রয়ী মূল্যে স্যানিটারি ন্যাপকিন প্রদান করি।

আমরা সরকারের সঙ্গে অংশীদারত্বের মাধ্যমে যক্ষ্মা ও ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত রোগীর রোগ নির্ণয় থেকে শুরু করে চিকিৎসা ও ফলোআপ পর্যন্ত সামগ্রিক সেবা প্রদান করি। ২০৩০ সালের মধ্যে যক্ষ্মা ও ম্যালেরিয়া নির্মূলকরণের লক্ষ্যে আমরা রোগ নির্ণয়ের ক্ষেত্রে আধুনিক যন্ত্রপাতি ও প্রযুক্তি ব্যবহার চালু করেছি। সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণে আমরা নানা ধরনের প্রতিরোধব্যবস্থা গ্রহণ করি। কীটনাশকযুক্ত মশারি বিতরণের মাধ্যমে আমরা জনগণের ব্যক্তিগত সুরক্ষা নিশ্চিত করি।

স্বাস্থ্য ও ওয়াশ কর্মসূচি নতুন এন্টারপ্রাইজ মডেল চালু করেছে। এর মাধ্যমে জনগোষ্ঠীর মধ্যে স্বাস্থ্যসেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে সঠিক বিনিয়োগের সামর্থ্য তৈরি হবে। সবার জন্য মানসম্মত ও সাশ্রয়ী সেবাদানের মূল লক্ষ্যকে অনুধাবন করে আমরা বিদ্যমান সেবাগুলোর পাশাপাশি আরও নানা ধরনের পাইলট সেবাদান কার্যক্রম শুরু করেছি।

আমাদের কর্মস্থল

                

ব্র্যাক কুইজ

কোনটি দারিদ্র্য দূরীকরনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি কার্যকরী?

বিকল্প যোগাযোগ পন্থা